ফতোয়া: মুফতি মেরাজ তাহসিন

ফতোয়া নং: ৪৬৪২
তারিখ: ১-নভেম্বর-২০১৬
বিষয়:

পীর-বুযুর্গের নিকট বিপদ-আপদ দুঃখ-কষ্ট থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য পার্থনা করা৷

প্রশ্ন
অনেক লোক আছে, যারা নামায পড়ে, নিজেদেরকে মুসলমান বলে দাবি করে এবং তাওহীদে বিশ্বাসী, তথাপি তারা মনে করে, বিপদ-আপদ, দুঃখ-কষ্ট দূর করা ও কল্যাণ সাধনের ক্ষেত্রে পীর-বুযুর্গদের অনেক ক্ষমতা আছে। তাই তারা সরাসরি মৃত ও জীবিত পীরের নিকট প্রার্থনা করে, সাহায্য চায় এবং তাদের কাছে মুক্তি চায়। অথচ আমরা জানি, এ ধরনের ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কারো নেই। সঠিক বিষয়টি জানিয়ে বাধিত
করবেন।
উত্তর
কল্যাণ-অকল্যাণ, ভালো-মন্দ, উপকার-অপকার,
দুঃখ-কষ্ট ইত্যাদির সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী
একমাত্র আল্লাহ রাববুল আলামীন। তিনি ব্যতীত
অন্য কারো এ ধরনের কোনো ক্ষমতা নেই। এর উপর ঈমান ও বিশ্বাস রাখা প্রত্যেক
মুসলমানের জন্য অপরিহার্য। তাই বিপদ-আপদ বা
দুঃখ-কষ্ট থেকে মুক্তি পাওয়া বা কল্যাণ-
অকল্যাণে সাহায্য চাওয়ার ক্ষেত্রে মুমিনের
কর্তব্য হল, একমাত্র আল্লাহ রাববুল আলামীনের শরণাপন্ন হওয়া এবং তাঁর কাছেই
সাহায্য চাওয়া। এগুলো আল্লাহ ব্যতীত অন্য
কারো কাছে চাওয়া শিরক। কোনো পীর- বুযুর্গের নিকট বিপদ-আপদ থেকে মুক্তি লাভের জন্য এ মর্মে প্রার্থনা করা যে, আপনি আমাকে অমুক বিপদ থেকে উদ্ধার করেন বা
অমুক বিষয়ে সাহায্য করেন-এটা সম্পূর্ণ শিরকি ও
কুফরী কাজ। উপায়-উপকরণের উর্ধ্বের কোনো বিষয়ে
আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো কাছে সাহায্য চাওয়া
শিরক ফিল ইসতিআনা, যা ﺍﻳﺎﻙ ﻧﺴﺘﻌﻴﻦ এর অঙ্গীকার পরিপন্থী। আল্লাহ তাআলা আমাদের হেফাযত করুন। তবে যদি জীবিত কোনো হক্কানী পীর-
বুযুর্গ বা আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের নিকট এ মর্মে
দুআ চাওয়া হয় যে, আপনি আল্লাহর কাছে দুআ করেন যেন আল্লাহ তাআলা আমাকে বিপদ- আপদ থেকে উদ্ধার করে দেন এবং এক্ষেত্রে দুআপ্রার্থীর এ বিশ্বাস থাকে
যে, তিনি আল্লাহর মাহবুব ও নৈকট্যভাজন বান্দা
হিসেবে আশা করা যায় যে, আল্লাহ তাআলা তাঁর দুআ কবুল করবেন। তাহলে এতে কোনো সমস্যা নেই। বরং এটি হাদীস ও
সাহাবীগণের আমল দ্বারা প্রমাণিত।-ফাতাওয়া
উলামাইল বালাদিল হারাম ৬০-৬২ -জামে তিরমিযী, হাদীস : ২৫১৬; মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ২৬৬৯; তাফসীরে রূহুল মাআনী ৬/১২৮; আলবাহরুর রায়েক ২/২৯৮; হাশিয়াতুত তহতাবী আলালমারাকী ৩৭৮৷ উত্তর প্রদানে মুফতী মেরাজ তাহসীন মুফতীঃ জামিয়া মাজহারুল হক দারুল উলুম দেবগ্রাম আখাউড়া ব্রাক্ষণবাড়িয়া
01756473393
উত্তর দিয়েছেন : মুফতি মেরাজ তাহসিন
এ বিষয়ে আরো ফতোয়া:
এ বিভাতের বাকি সকল ফতোয়া এখানে পাবেন : বিভাগ আজান-নামাজ